প্রযুক্তি খাতের বিশেষ সি-ফরম চালু

তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য ও সেবা রপ্তানির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পথ সুগম করতে আলাদা ফরম-সি চালু করা হয়েছে। এর ফলে এ খাতের প্রকৃত আয়ের সঠিক তথ্য পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন খাত সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, গত রবিবার থেকে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের জন্য আলাদা সি-ফরমসহ চারটি পৃথক এসআরও জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ পলিসি বিভাগ। এসআরওগুলোর মাধ্যমে এক্সপোর্ট রিটেনশন কোটা (ইআরকিউ) অ্যাকাউন্টের রিটেনশন কোটা ৭০ শতাংশে উন্নীত করা হয়েছে। ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে দেশের বাইরে অ‍র্থ প্রেরণের সীমা ৩০ হাজার ডলার করা হয়েছে। একইসঙ্গে সহজ করা হয়েছে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ভা‍র্চুয়াল অ‍র্থ প্রেরণের বিষয়টি।

এছাড়াও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ইআরকিউ অ্যাকাউন্টে আগে যেখানে সর্বোচ্চ ৬০ শতাংশ অর্থ রাখা যেত সেখানে নতুন সা‍‍র্কুলারে ৭০ শতাংশ রাখা যাবে এবং ক্রেডিট কার্ড প্রতিবার রিফিলের সীমা ২৫০০ মার্কিন ডলার থেকে ৬ হাজার মার্কিন ডলার করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ফ্রিল্যান্সার, মোবাইল অ্যাপ ডেভলপার ও ব্যক্তি প‍র্যায়ের উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যবসা পরিচালনার খরচ বছরে ৩০০ মা‍র্কিন ডলার বিদেশে প্রেরণের ক্ষেত্রে ইস্যুকৃত ভা‍র্চুয়াল কা‍র্ডটির বিষয়ে কিছু অস্পষ্টতা ছিল। নতুন সা‍র্কুলারে কা‍র্ডটি ডেবিট, ক্রেডিট অথবা প্রি–পেইড হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

এ বিষয়ে বেসিস সভাপতি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার জানান, ‌‌‘তফসিলি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রপ্তানি আয় দেশে আনতে হলে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোকে সি-ফরম পূরণ করতে হয়। আগের গড় ফর্মে অনেক ক্ষেত্রে আইটি/আইটিইএস শিল্প খাতের ক্ষুদ্র রপ্তানিকারকদের আয় হিসাবের বাইরেই থেকে যায়। তাছাড়া সেটি জটিল হওয়ায় রপ্তানিকারকেরা খুব সহজে ব্যবহার করতে পারেন না। এছাড়া খাতটি হতে আয়কৃত অর্থের সঠিক হিসাবও থাকতো না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *